সপ্তাহ অনুযায়ি গর্ভাবস্থা
প্রথম তিন মাস

৪ সপ্তাহ:

অভিনন্দন!! আপনি যদি জানতে পারেন যে আপনি গর্ভবতী তাহলে আপনি অনেকের চাইতে ভাগ্যবতী।কারণ অনেকেই মাত্র ৪ সপ্তাহে গর্ভধারণের সুসংবাদটি পান না।এখন গর্ভধারণের উপসর্গ গুলো বুঝতে পারবেন না।এই সময় ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা উচিত। তিনি কিছু ভিটামিন সাপ্লিমেন্ট দিতে পারেন ।এর মধ্যে অন্যতম হল ফলিক এসিড। এখন থেকেই স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহন করুন এবং পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন।

৫ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে আপনি গর্ভধারণের উপসর্গ গুলো সর্ম্পকে পরিচিত হতে শুরু করবেন।স্তনের নাজুকতা, বমি বমি ভাব, ক্লান্তি ও অবসাদ দেখা দিতে পারে।প্রথম তিন মাস এই লক্ষনগুলো থাকে পরবর্তীতে এর পরিমান কমে আসে।এই সময় নিজের যত্ন নিন।

এই সপ্তাহে বাচ্চার হৃদপিন্ড, পাকস্থলি, লিঙ্গ ও কিডনির গঠন শুরূ হয়।বাচ্চা ৩ ইঞ্চির মত লম্বা হয় এবং খুব দ্রুত বাড়তে থাকে।

৬ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে আপনার আচরণগত কিছু পরির্বতন আসতে পারে।আপনি কখনো হয়ত আবেগপ্রবণ হয়ে উঠতে পারেন আবার কখনো উৎফুল্ল হয়ে উঠতে পারেন।গর্ভধারণের লক্ষনগুলো নিয়ে অস্বস্তিতে ভুগতে পারেন।এই সপ্তাহে বাচ্চার অনেক গুরুত্বপূর্ণ গঠন যেমন: চোখ, নাক, কান, চিবুক এবং রক্ত চলাচল ব্যবস্থা তৈরী হতে শুরু করে।স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহন করুন এবং পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন।

৭ সপ্তাহ:

আপনার প্রথম তিন মাসের অর্ধেক সময়ই আপনি পার করে ফেলেছেন।এই সময় যদিও ওজন খুব বেশী বাড়ে না এবং আপনাকে দেখেও গর্ভবতী মনে হবে না।

এই সপ্তাহে বাচ্চা ৮ মি. মি. এর মত লম্বা হয়।বাচ্চার হাড়ের গঠন শুরু হয়। এখন বাচ্চার মুখ, ঠোট, নাকের গঠন বোঝা যায়।অল্পতেই ক্লান্ত বোধ করতে পারেন। যথাসম্ভব বিশ্রাম নেয়ার চেষ্টা করুন।হরমোনাল পরিবর্তনের কারনে হাত পা বা মুখে নতুন লোম দেখা দিতে পারে।যদি অতিরিক্ত বমি হয় বা ওজন কমতে থাকে তাহলে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

৮ সপ্তাহ:

আপনি মনে মনে হয়ত আপনার বাচ্চার ছবি আকঁতে শুরু করেছেন। এই সময় বাচ্চা নিয়ে অনেকে স্বপ্ন বা দুঃস্বপ্ন দেখতে পারেন।এই সপ্তাহে বাচ্চা ১২ মি. মি. এর মত লম্বা হয়।বাচ্চার দুধ দাতেঁর গঠন শুরু হয়।আপনি বাচ্চার নড়াচড়া অনুভব করবেন না কিন্তু এখন থেকেই বাচ্চা হাত ও পা নড়াচড়া করা শুরু করে।বদ হজম বা বুক জ্বালাপোড়া দেখা দিতে পারে। একবারে অনেক খাবার না খেয়ে অল্প অল্প করে বারবার খান।

৯ সপ্তাহ:

এই সময় বাচ্চা ২০ মি. মি. এর মত লম্বা হয়।হৃদপিন্ডের গঠন সম্পূর্ণ হয়।সকালবেলা বা রাতে বমি ও মাথাব্যথার প্রকোপ বেড়ে যেতে পারে।এই সময় মুড সুইং খুবই সাধারন ঘটনা।অল্প কিছুতেই উদ্বিগ্ন বা রেগে যেতে পারেন অথবা বিষন্নতায় ভুগতে পারেন।শান্ত থাকার চেষ্টা করুন ও পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন।এমন কিছু করুন যাতে আপনরে মন ভালো থাকবে এবং হাসি খুশী থাকুন।

১০ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহ থেকেই আপনি নতুন জামা কাপড় তৈরীর কথা চিন্তা ভাবনা করতে পারেন । ঢিলেঢালা ও আরামদায়ক পোশাক নির্বাচন করুন।এই সপ্তাহে বাচ্চা ২-৩ সে. মি. এর মত লম্বা হয় এবং ওজন ৩-৫ গ্রামের মত হয়।।বাচ্চার মুখের গঠন বোঝা যায় এবং শরীরের চেয়ে মাথা অনেক বড় দেখায় ।

১১ সপ্তাহ:

আপনি গর্ভাবস্থার প্রথম তিন মাসের শেষের দিকে চলে এসেছেন।এখন আপনার বমি ভাব ও মাথা ব্যথা কমে আসবে।বাচ্চার ওজন ৮ গ্রামের মত হয় ও ৩-৫ সে. মি. এর মত লম্বা হয়।

১২ সপ্তাহ:

অভিনন্দন!!! এটা আপনার প্রথম তিন মাসের শেষ সপ্তাহ ।এই সপ্তাহে বাচ্চার নাক ও ঠোঁটের গঠন সম্পূর্ণ হয়।এসময় বাচ্চা তার কিডনি থেকে প্রসাব উৎপাদন করতে পারবে।এই সময় কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা দিতে পারে।প্রচুর পানি পান করুন ও আঁশযুক্ত খাবার খান।বাচ্চা ৫-৬ সে. মি. এর মত লম্বা হয়।

দ্বিতীয় তিন মাস

১৩ সপ্তাহ:

অভিনন্দন!!! আপনার দ্বিতীয় তিন মাসের প্রথম সপ্তাহ।খাবারের রুচি বেড়ে যেতে পারে বা বমি ভাবের কারনে অরুচি দেখা দিতে পারে।টক,মসলাদার বা মিস্টি খাবারের প্রতি আসক্তি দেখা দিতে পারে।বমি ভাব কমে যাবে ও আগের চেয়ে কিছুটা সুস্থ বোধ করবেন।

১৪ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার নড়াচড়া অনুভব করবেন। এই সময় বাচ্চা ৯-১০ সে. মি. লম্বা হয় ও ওজন ৫০ গ্রামের মত হয়।এই সময় বাচ্চা শ্বাস প্রশ্বাস নেয় ও অ্যামিওনিটিক ফ্লুইড গ্রহন করে।এটি বাচ্চার শ্বসনতন্ত্র ও খাদ্যতন্ত্র গঠনে সাহায্য করে। ঘুমের সমস্যা দেখা দিতে পারে ও পায়ে ব্যথা হতে পারে। হালকা ম্যাসাজ করলে উপকার পাওয়া যাবে।

১৫ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চা ৯-১০ সে. মি. লম্বা হয় ও ওজন ১০০ গ্রামের মত হয়।বাচ্চার ত্বক খুবই পাতলা হয় এবং চুল উঠতে শুরু করে।এই সময় বমি বমি ভাব কমে আসবে ও আগের চেয়ে সুস্থ অনুবভ করবেন।হাত ও পায়ে পানি আসতে পারে। এক্ষেত্রে হালকা ব্যায়াম, সাতাঁর বা হাটাহাটি করতে পারেন এবং অবশ্যই নিয়মিত ৮ গ্লাসের মত পানি পান করবেন।

১৬ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চা ১১-১২ সে. মি. লম্বা হয়। এই সময় বাচ্চার কান ও চোখ সঠিক অবস্থানে আসে । হাত ও পায়ের নখ তৈরী হয়।কোমরে ব্যাথা অনুভব করতে পারেন।এই ক্ষেত্রে বাম দিকে কাত হয়ে ঘুমাবেন। এক জায়গায় অনেকক্ষন দাড়িয়ে থাকবেন না এবং বসার পরে পা ছড়িয়ে দিন ।দাঁতের মাড়ি ফুলে যেতে পারে বা রক্ত পড়তে পারে। দাঁতের সঠিক যত্ন নিন ও ডেন্টিস্টের পরামর্শ নিন।

১৭ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চা ১৩.৫ সে. মি. লম্বা হয় ও ওজন ১৫০ গ্রামের মত হয়।পেটের নিচে অংশে ব্যথা হতে পারে কারন বাচ্চার বৃদ্ধির সাথে সাথে পেশীর উপর চাপ পড়ে।কোমরে ও হাত পায়ে ব্যাথার অনুভূতি থাকতে পারে।আপনার ক্ষুধা বেড়ে যেতে পারে। বুকজ্বালা পোড়া হলে একাসাথে বেশী খাবার খাবেন না ও খাবার পরপর শুয়ে পড়বেন না।

১৮ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চা ১৫ সে. মি. লম্বা হয় ও ওজন ২৫০ গ্রামের মত হয়।এই সময় বাচ্চা শব্দ শুনতে পায় ও নড়াচড়া করার সুযোগ পায়।মাথা ঘুরাতে পারে, সাদা রংয়ের vaginal discharge বের হতে পারে।যদি vaginal discharge এর রং পরিবর্তন হয় এবং চুলকনি ও দুর্গন্ধ থাকে তাহলে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

১৯ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ৩০০ গ্রামের মত হয় ও ১৬ সে. মি. লম্বা হয় । এই সময় বাচ্চার ত্বকে সাদা ক্রিমের মত পদার্থের প্রলেপ দেখা যায়। এটা বাচ্চার ত্বককে অ্যামিওনিটিক ফ্লুইডের এফেক্ট থেকে রক্ষা করে।যথাসম্ভব বিশ্রাম নেয়ার চেষ্টা করুন।

২০ সপ্তাহ:

অভিনন্দন !! আপনি গর্ভকলীন সময়ে অর্ধেক সময় পার করে ফেলেছেন।এই সপ্তাহে বাচ্চা ১৮ সে. মি. লম্বা হয় ও ওজন ৩৫০ গ্রামের মত হয়।ঘুমের ব্যাঘাত ঘটতে পারে ও দু:স্বপ্ন দেখতে পারেন। নিজেকে মানসিকভাবে শান্ত রাখার চেষ্টা করুন।যেহেতু বাচ্চা খুব দ্রুত বাড়তে থাকে তাই এটি ফুসফুসে চাপ সৃষ্টি। এই জন্য শ্বাসকষ্ট দেখা দিতে পারে।

২১ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ৩৫০-৪২৫ গ্রামের মত হয় ও ১৯ সে. মি. লম্বা হয়। বাচ্চার চোখের পাপড়ি ও ভ্রু যুগল তৈরী হতে শুরু করে।বাচ্চার নড়াচড়া আগের চেয়ে বেশী অনুভব করবেন।এই সময়ে বাচ্চা স্বাদগ্রন্থি তৈরী হতে শুরু করে তাই মায়ের বিভিন্ন স্বাদের খাবার খাওয়া্ উচিত।

২২ সপ্তাহ:

আপনার ২য় তিন মাস প্রায় শেষ হওয়ার পথে। এই সময় আপনি নতুন বাচ্চার জন্য প্রস্তুতি নিতে শুরূ করতে পারেন। এই সপ্তাহে বাচ্চা ২০ সে. মি. লম্বা হয় ও ওজন ৪২৫-৫০০ গ্রামের মত হয়।আপনার ওজন এখন থেকে দ্রুত বাড়তে থাকবে। এই সময় বাচ্চার ঠোঁটের গঠন সর্ম্পূণ হয়।ডায়াবেটিস টেস্ট করার জন্য ডাক্তারের পরামর্শ নিন (২৪-২৮ সপ্তাহের মধ্যে করাবেন)

২৩ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ৫০০-৬০০ গ্রামের মত হয় ও ২১ সে. মি. লম্বা হয়।বাচ্চার ফুসফুসের বৃদ্ধি অব্যাহত থাকে।বাচ্চা আপনার কথা ও হৃদস্পন্দন শুনতে পায়।পায়ে পানি আসতে পারে ও কোমরে ব্যথা থাকে।দাঁত থেকে রক্ত পড়তে পারে তাই দাঁতের যত্ন নিন।

২৪ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ৬০০-৭০০ গ্রামের মত হয় ও ২২ সে. মি. লম্বা হয়। বাচ্চার চোখের গঠন সম্পূর্ণ হয়। এই সময় বুক জ্বালাপোড়া,পেশীতে ব্যথা, মাথা ঘুরানো ও অবসাদ অনুবভ করতে পারেন।চোখে শুস্ক ভাব, কচকচে ভাব ও আলোর প্রতি সংবেদনশীলতা আসতে পারে।শরীরে স্ট্রেচ মার্ক দেখা যায় বিশেষ করে পেটে এবং হালকা চুলকানিও হতে পারে।এই সময় লোশন বা ক্রীম মাখতে পারেন এতে করে চুলকানি কমবে।

২৫ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ৭০০-৮০০ গ্রামের মত হয় ও ২৩ সে. মি. লম্বা হয়।এই সময় বাচ্চার বিভিন্ন ইন্দ্রিয় যেমন চোখ, নাক, কান ও জিহ্বা পূর্ণতা পেতে শুরু করে।বারবার প্রসাবের বেগ হওয়া বা প্রসাবে জ্বালাপোড়া মূত্রনালীর সংক্রমণ বা ইউরিনারি ট্রাক্টে ইনফেকশনের লক্ষন। এই লক্ষনগুলোকে পর্যবেক্ষন করুন ও ডাক্তরের পরামর্শ নিন।কোন হাসপাতালে ডেলিভারী করাতে চান তা এখন থেকেই ঠিক করে নিতে পারেন।

২৬ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ৮৫০-১০০০ গ্রামের মত হয় ও ২৪ সে. মি. লম্বা হয়।এই সপ্তাহে বাচ্চা প্রথমবারের চোখ খুলতে পারে। যদিও মায়ের গর্ভে দেখার তেমন কিছুই নেই কিন্তু কোন তীব্র আলো মায়ের গর্ভে পড়ে তাহলে তা সনাক্ত করতে পারে।মায়ের খাবারের প্রতি বেশী যত্নশীল হতে হবে।অল্প অল্প করে বার বার খাবেন এতে করে আপনার ব্লাড সুগার লেভেল ঠিক থাকবে এবং ক্লান্তি অনুভব করবেন না।আগামী সপ্তাহ থেকে আপনার তৃতীয় তিন মাস শুরু হবে।

তৃতীয় তিন মাস

২৭ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ১০০০-১১০০ গ্রামের মত হয় ও ২৫ সে. মি. লম্বা হয়। এই সময় বাচ্চার অধিকাংশ অঙ্গ প্রত্যঙ্গের গঠন সম্পূর্ণ হয় ও শ্রবন শক্তির বিকাশ ঘটে।

২৮ সপ্তাহ:

বাচ্চার ওজন ১১০০-১২৫০ গ্রামের মত হয় ও ২৬ সে. মি. লম্বা হয়।আপনি প্রসবকালীন সময়ের কাছাকাছি চলে এসেছেন ।অনেকেরই প্রসবের নির্ধারিত সময়ের আগে ব্যাথা বা কিছু লক্ষন দেখা দিতে পারে ।একে প্রির্টাম লেবার বলে। এর লক্ষন হল কোমরে হালকা ব্যথা, পানি ভেঙ্গে যাওয়া, জরায়ু থেকে রক্ত বা পিচ্ছিল পদার্থ বের হওয়া ও ১০ মিনিট পরপর জরায়ুর সংকোচন ও প্রসারণ অনুভব করা। এই লক্ষনগুলো দেখা গেলে দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

২৯ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ১৩০০-১৪০০ গ্রামের মত হয় ও ২৭ সে. মি. লম্বা হয়।ফুসফুসের গঠন সম্পূর্ণ না হলেও বাচ্চা শ্বাস প্রশ্বাস নিতে শুরু করে। বাচ্চার চোখ আলো সনাক্ত করতে পারে ও হাড়ের গঠন সম্পূর্ণ হয়।গর্ভাবস্থায় হাটা সবচেয়ে ভাল ব্যায়াম।

৩০ সপ্তাহ:

বাচ্চা ২৪ সে.মি. লম্বা হয় ও ওজন ১৫০০-১৬০০ গ্রামের মত হয়।অধিকাংশ সময় বাচ্চা ঘুমিয়ে কাটায়। এখন থেকেই লক্ষ্য রাখতে পারেন যে কখন বাচ্চা ঘুমায় ও কখন খেলা করে।এই সময় স্তন থেকে শাল দুধের নিঃসরণ হতে পারে। অনেকেই একে প্রসবের লক্ষন মনে করতে পারেন । এটি অনেকের ক্ষেত্রে দেখা যায় এতে চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই।জন্মের পরপরই বাচ্চাকে শাল দুধ খাওয়ানো উচিত কারন এতে থাকে প্রচুর প্রোটিন ও অ্যন্টিবডি।

৩১ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ১৭০০-১৮০০ গ্রামের মত হয় ও ২৯ সে. মি. লম্বা হয়।বাচ্চার ওজন দ্রুত বাড়তে থাকে এর ফলে মায়ের ওজনও বেড়ে যায়।এই কারণে হাত পায়ে ব্যথা থাকতে পারে।ব্যথা কমানোর জন্য হালকা ম্যাসাজ করতে পারেন।

৩২ সপ্তাহ:

বাচ্চা ৩০ সে.মি. লম্বা হয় ও ওজন ১৯০০-২০০০ গ্রামের মত হয়।বাচ্চার কিডনীর গঠন সম্পূর্ণ হয়।এই সময় বাচ্চার মাথা নিচের দিকে থাকবে যদি না তাকে তাহলে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।হাত পায়ে অতিরিক্ত পানি আসা, চোখে ঝাপসা দেখা ও মাথা ব্যথা থাকলে জরুরি ভিত্তিতে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।এগুলো হল প্রিএকলাম্পাসিয়ার লক্ষন।

৩৩ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ২১০০-২২৫০ গ্রামের মত হয় ও ২৯ সে. মি. লম্বা হয়।এই সময় বাচ্চা আশেপাশের জিনিস দেখতে পায় ও অনুভূতিগুলো বুঝতে শেখে।এমনকি মায়ের হৃদস্পন্দন ও কথা শুনতে পায়।যেহেতু এই সময় বাচ্চা দ্রুত বাড়তে থাকে তাই একটু বাড়তি খাবার খান।

৩৪ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ২০৫০-২৫৫০ গ্রামের মত হয় ও ৩৩ সে. মি. লম্বা হয়।আপনি গর্ভবস্থার শেষ সময়টুকু পার করছেন তাই দীর্ঘ ভ্রমন এড়িয়ে চলুন।প্রসব ব্যথার লক্ষনগুলোর দিকে লক্ষ্য রাখুন যেমন: জরায়ুর সংকোচন ও প্রসারণ, কোমরের নিচের দিকে ব্যথা, পানি ভেঙ্গে যাওয়া ইত্যাদি।

৩৫ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ২৬০০-২৭০০ গ্রামের মত হয় ও ৩৪ সে. মি. লম্বা হয়। আপনার প্রচুর আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে।কারণ বাচ্চা ভূমিষ্ঠ হওয়ার আগের মাসে এই অতি প্রয়োজনীয় মিনারেলটি মায়ের শরীর থেকে নিয়ে নেয়।এটি রক্তের কোষ গঠনে সাহায্য করে

৩৬ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ২৮৫০-২৯৫০ গ্রামের মত হয় ও ৩৫ সে. মি. লম্বা হয়।পরের কয়েক সপ্তাহ বাচ্চার শরীর দ্রুত বাড়তে থাকবে। এই সময়ে প্রচুর সাদা স্রাব যেতে পারে ।এটা খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার। যদি স্রাবের সাথে রক্ত দেখা যায় তাহলে বুঝতে হবে প্রসব ব্যথা শুরু হচ্ছে।

৩৭ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ৩০০০-৩১০০ গ্রামের মত হয় ও ৩৬ সে. মি. লম্বা হয়।এই সময় যদি স্রাবের সাথে রক্ত দেখা যায় তাহলে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

৩৮ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ৩২০০-৩২৫০ গ্রামের মত হয় ও ৩৭ সে. মি. লম্বা হয়।এই সময় বাচ্চার গঠন সম্পূর্ণ হয়। ঘন ঘন প্রস্রাব হতে পারে কিন্তু এই সময় প্রচুর পানি খেতে হবে।অধিকাংশ শিশু জন্মের নির্ধারিত সময়ের দুই-চার সপ্তাহের আগে জন্ম নেয়।

৩৯ সপ্তাহ:

এই সপ্তাহে বাচ্চার ওজন ৩২০০-৩২৫০ গ্রামের মত হয় ও ৩৭ সে. মি. লম্বা হয়।এই সময় দ্রুত ওজন বাড়তে থাকে এবং প্রসবের লক্ষণগুলোর দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

৪০ সপ্তাহ:

অভিনন্দন!! একটি দীর্ঘ ও সুন্দর যাত্রার এটাই শেষ সপ্তাহ । এই সপ্তাহের যেকোন দিন আপনার ছোট্ট সোনামনি আপনার কোল আলো করে এই পৃথিবীতে আসবে।

জন্মের সময় বাচ্চার ওজন:

প্রিটার্মবেবী: যেসকল শিশু ৩৭ সপ্তাহের আগে জন্ম নেয় তাদেরকে প্রিটার্ম বেবী বলে। এই সকল শিশুর জন্মের সময় ওজন ২.২৬ কেজি বা এর কম হয়ে থাকে।

টার্ম বেবী: যেসকল শিশু ৩৮-৪০ সপ্তাহের মধ্যে জন্ম নেয় তাদেরকে টার্ম বেবী বলে।এই সকল শিশুর জন্মের সময় ওজন ৩.৩৪ কেজি হয়ে থাকে।

পোস্টটার্ম বেবী: যেসকল শিশু ৪১ সপ্তাহের পরে জন্ম নেয় তাদেরকে পোস্টটার্ম বেবী বলে।এই সকল শিশুর জন্মের সময় ওজন ৪ কেজির বেশি হয়ে থাকে।